নীড় / ডেইরি / ডেইরি সংক্রান্ত দুটি প্রশ্ন, সাহায্য চাই

ডেইরি সংক্রান্ত দুটি প্রশ্ন, সাহায্য চাই

১। নর্থ বেঙ্গল গ্রে জাতের গরু সম্পার্কে বিস্তারিত তথ্য যেমন সুস্পষ্ট শারীরিক ও কৌলিক বৈশিষ্ট্য, ১০০% বিশুদ্ধ নর্থ বেঙ্গল গ্রে জাতটি কোথায় পাওয়া যাবে, জাতটি টেকসই কিনা সার্বোপরি বানিজ্যিকভাবে কতটুকু লাভজনক তা বিস্তারিত গরুর ছবিসহ জানালে উপকৃত হব।

২। Please inform me which of the following trait is the most profitable for commercial dairy or beef fattening farming in Bangladesh? And rank them in ascending order.

1. RCC (Red Chittagong Cow)

2. NBG (North Bengal Grey)

3. Pabna Cows

4. Munshigonj Cows

5. Mir Kadimer Gavi

 

Your quick response will be highly appreciated.

লেখকঃ shaon

এটাও দেখতে পারেন

মাংসের চাহিদা মিটাতে পারে বেলজিয়ান ব্লু

বিশ্বের অন্যতম গরু উৎপাদনকারী দেশ হল বেলজিয়াম। দেশটির অন্যতম বা বিখ্যাত গরুর জাতের নাম হচ্ছে …

৬ মন্তব্য

  1. এমন কি কেউ নেই যে এই বিষয় গুলো নিয়ে কোন তথ্য দিতে পারবে?

  2. ভেটেরিনারীতে কি গরুর জাত সম্বন্ধে কোন ধারনা দেওয়া হয়না? যদি ধারনা থাকে তা হলে বাংলাদেশের গরুর জাত সম্পর্কে মৌলিক সাধারন প্রশ্নগুলোর উত্তর আশা করি।

    • ডক্টর আজিজ সিদ্দিকী

      Dear Mr. Shaon: Thank you for your interest on Bangladeshi cattle breeds and I appreciate your patience for this response. I am not sure if my response would help you to be more interested on this cattle or make you dishearten but followings are some facts features of this cattle breed.

      In general, the cattle available in Bangladesh do not demonstrate any clear breed characteristics. They are know as nondescript indigenous dwarf (small) size zebu cattle. The body weight ranges from 150-200 kg and in exceptional cases up to 250 kg. The coat color of this cattle ranges a wide spectrum of colors and their combinations. The link (http://www.embryoplus.com/cattle_bengali.html) helps you to find how our cattle breed compares to other cattle breeds available in the world. Recently, some works have been done on characterizing and classifying Bangaldeshi cattle. This is mainly based on their coat color and location where they are available. The productivity are more or less same. Some productive and reproductive characteristics are reported in these articles (http://www.fangrasia.org/admin/admin_content/files/22142.pdf), (http://scialert.net/fulltext/?doi=ijds.2010.245.252). You can find more if you search in Google.

      Among the cattle varieties characterized, Red Chittagong Cattle (RCC) – a red colored cattle found in Chittagong has the most distinct color characteristics that distinguish it from the other cattle available in Bangaldesh. Kir Kadem Cattle is mainly available in the Kir Kadem of Munshigonj District. This white colored cattle has the most similarities with Ongle breed of India. Important to mention that by intensified breeding and selection a new breed is developed in Brazil know as Nelore which is originated from Ongle. Anyways, Kir Kadem Cow is very popular to some people in old Dhaka for krobani. The importance of this cattle to these people is not for the meet production of this cattle rather it is for the color preference. Cattle has to be bright white! So called Pabna breed is actually a crossbred of local and some Shahiwal or/and Sindhi cattle and apparently has a distinct body shape and mostly redish in color. This cattle is somewhat larger sized and produce more milk compared to other deshi cattle available in Bangladesh. It seems that the characterizing genes are somewhat fixed in this type of cattle. North Bengal Grey is available in the northern part of Bangaldesh. Their body color is greyiss to whitish but has no productive or reproductive advantages over the other colored cattle available in Bangaladesh. You can find more including pictures of this cattle in this article (ftp://ftp.fao.org/docrep/fao/010/a1128t/a1128t05.pdf).

      If you are considering to establish a commercial cattle farm you can choose any of this type of this cattle. A continuous intensified breeding and selection would help you maintaining the breed characteristics of the cattle. A better nutrition would definitely give you some better production within it’s genetic limit. However, to succeed with profitability, a better choice would be using Holstein crosses for your farm.

      As a final note, characterizing our existing cattle and categorizing them in different groups is a good start. In fact, this is the foundation work towards developing a breed of ours. This kind of work should be continued both in private and public sector. Particularly, government has a big role, which apparently missing, but continuous work on this issue definitely bring a success for us someday. As of now, from productivity stand point these cattle compares to the established commercial cattle breeds (dairy or beef) as a rickshaw compares to an SUV of V6 engine.

      Thank you!

  3. ডাঃ তায়ফুর রহমান (এডমিন)

    পাবনা জেলার গরু (Pabna Variety) : উত্তর বঙ্গের পাবনা, সিরাজগঞ্জ, রাজশাহী ও রংপুর জেলার ধূসর বর্ণের এক প্রকার দুধাল গাভী দেখা যায়। তবে পাবনা জেলার ভাঙুরা, এবং অবিভক্ত পাবনা জেলার শাহজাদপুরে এই ধরনের গাভী বেশি পাওয়া যেত বলে এদেরকে পাবনা জেলার গরু বলা হয়। এসব গাভীর আকৃতি ও রং দেখলে মনে হয় সিন্ধির হারিয়ানা ও বিহার প্রদেশের উন্নত জাতের গরুর বংশধর। প্রকৃতপক্ষে প্রায় শতবর্ষ পূর্বে শাহজাদপুর ও ভাঙুরা অঞ্চলের গোয়ালাগণ বিহার ও উত্তর প্রদেশ থেকে ভাল জাতের ষাঁড় কিনে এনে তাদের গাভীকে প্রজনন করাতো। এইভাবে প্রায় তিন-চার দশক ধরে তারা তাদের গাভীর জাতকে উন্নয়ন করার চেষ্টা করেছে। একটি গাভী দৈনিক প্রায় ৬-১০ লিটার দুধ দেয়।

    মুন্সিগঞ্জ এলাকার গরু (Munshiganj Variety): ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ ও মানিকগঞ্জ এলাকায় সাদা রঙের দুধাল গাভী দেখা যায়। এসব গরুর আকৃতি মধ্যম ও একটু লম্বাটে ধরনের। মুখ কিছুটা সরু ও লম্বা, চূড়া প্রায় থাকেনা, পিঠ সোজা, শিং সরু ও খুব ধারালো, দুই চোখের মাধে কপালের অংশ কিছুটা উঁচু। গাভীর ওলান সামনের কিছুটা বাড়ানো এবং মিল্ক ভেইন বেশ মোটা আর স্পষ্ট। তবে ষাড় তুলনামূলকভাবে বেশ বড় আর কর্মঠ হয়ে থাকে। পরিকল্পিতভাবে লালন-পালন করলে একটি গাভী থেকে প্রায় ১০-১২ লিটার দুধ পাওয়া সম্ভব।

    রেড চিটাগাং: চট্টগ্রামের লাল জাতের গরুগুলো চট্টগ্রামের আদি বাসিন্দা না কোথাও থেকে আনা হয়েছিল তা জানা যায়নি। লাল বর্ণের এগরু দেখতে ছোট-খাটো, পিছনের দিক বেশ ভারী, চামড়া পাতলা, শিং ছোট ও চ্যাপ্টা, মুখ খাটো ও চওড়া, মাঝারি গলকম্বল, গলা খাটো ও সামান্য কুঁজও আছে। ওলান বেশ বর্ধিত, বাট সুডৌল, মিল্ক ভেইন বেশ স্পষ্ট, ওলানের সম্মুখের চামড়া সামান্য ঝুলানো, গাভী অনুপাতে লেজ যথেষ্ট লম্বা এবং শেষ প্রান্তের চুল লাল বর্ণের। গাভীর ওজন ৫০০-৫৫০ পাউন্ড পর্যন্ত হতে পারে। ভালো স্বাস্থ্যবতী লাল গাভী প্রায় ১০-১২ লিটার দুধ দিতে পারে। ষাড় ও বলদগুলো বেশ বলিষ্ঠ আর শক্তিশালী হয়।

    তবে ফরিদপুর জেলার একটি স্থানীয় জাত সম্পর্কে জানা যায়, এদের ষাঁড়ের ওজন প্রায় ৫০০-৭০০ পাউন্ড এবং গাভীর ওজন প্রায় ৪০০-৬০০ পাউন্ড পর্যন্ত হয়ে থাকে।

    North Bengal Grey ও মীর খাদিমের গাভী সম্পর্কে কেউ কিছু জানলে শেয়ার করুন।

    (উপরোক্ত তথ্য সমূহ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডঃ এমএ সামাদ কর্তৃক সম্পাদিত পশু পালন ও চিকিৎসাবিদ্যা বই থেকে নেয়া হয়েছে)

  4. মীর খাদিমের গাভী মনে হয় মুন্সিগঞ্জ এলাকার গরু

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *